Article on Travel // Soumya Dev Chandra

444

সস্ত্রীক আমাদের খুদেকে নিয়ে ঝটিকা সফরে ঘুরে এলাম হুগলির তারকেশ্বর ধাম l অনেকটা ঘুরে বেড়ানোর ইচ্ছা আর ছবিতোলার নেশায় আমার আমতার বাড়ি থেকে ঠিক সকাল ১০.৩০ মিনিট নাগাদ বাইক স্টার্ট করলাম এবং ঠিক দুপুর ১২ টা নাগাদ পৌঁছেগেলাম তারকেশ্বর l এই ৪২ কিলোমিটার রাস্তার মোটামুটি ৮০ শতাংশই খুব ভালো কিন্তু হাওড়ার উদয়নারায়ণপুরের পর থেকে কিছুটা রাস্তা খানা-খন্দ ময় l 

চাইলেই আপনিও কোনো একদিন ঘুরে আস্তেই পারেন, খরচ কিন্তু নাগালের মধ্যেই ১০০০ টাকা l 

21

আমার এক দূরসম্পর্কের আত্বিয় “ফোকরে” দা-কে অশেষ ধন্যবাদ না দিয়ে কোনো উপায় নেই, কারণ উনিই  আমাদের পূজা দেবার সমস্ত বন্দোবস্ত করিয়ে দিয়েছিলেন l ওনার লোককে সাথে নিয়ে আমরা একটি প্রসাদের দোকানে নিজেদের জুতো, চামড়ার বেল্ট, কাপড় বদলে (তারকেশ্বরের মন্দিরে ছেলেদের খালি গায়ে প্রবেশ আবশ্যিক) পূজার জন্য ডালা ও অন্যান সামগ্রী কিনে চললাম মন্দিরে l 

মন্দিরের প্রবেশ দ্বারের বামদিকে বিশাল “দুধ পুকুর” চাইলে আপনি সেখানেই স্নান করে নিতে পারেন পূজা দেবার আগে, আমরা যেহেতু বাড়ি থেকেই স্নান করে বের হয়েছিলাম শুধুই একটু ওই পুকুরের জল আমাদের মাথায় ছিটিয়ে নিলাম, তারপর মন্দিরের ভিতরে প্রবেশ করলাম (আমার সঙ্গে বাচ্চা থাকায় আমরা কিন্তু ওখানের লম্বা লাইন-এ দাঁড়াবার “রিস্ক” নিইনি ) এবং প্রায় সঙ্গে-সঙ্গেই বাবার সাক্ষাৎ দর্শন, এ এক অসাধারণ অনুভূতি !

12

এরপর, আমার অর্ধাঙ্গিনী ঠিক প্রধান মন্দিরের বাইরেই বাবার একটি ত্রিশূলে ঢিল বেঁধে কিছু মনোস্কামনা জানালো l “ভোলে বাবা পার করেগা” এই মর্মে সকল অনুগামীর চিৎকারে সমস্ত মন্দির চত্বর গমগম করছে, যেহেতু আমরা রবিবার ছুটির দিনে ওখানে গিয়েছিলাম তাই কাতারে-কাতারে ভক্তদের ভিড় উপচে পড়ছে ! আপনারা যদি অপেক্ষাকৃত ফাঁকা মন্দির এবং ভিড়-ঠেলাঠেলি থেকে রেহাই পেতে চান, যেকোনো “ছুটির দিন” এবং “সোমবার” বাদ দিয়ে যেতে পারেন l

12

মন্দির থেকে বেরিয়ে সামনেই আমরা এক হোটলে “সম্পূর্ণ নিরামিষ” (ভাত, ডাল, আলুপোস্ত, এঁচোড়ের সব্জি ও ধোঁকার ডালনা) খাবার খেলাম, খরচ মোটামুটি ৮০ টাকা প্লেট, আপনি চাইলে আমিষ ও খেতে পারেন l তারপর আমার স্ত্রী  কিছু ছোটো-খাটো জিনিস কিনে (ছেলের খেলনা, মা-বোন ও অন্যান আত্বিয়ের জন্য পিতলের সিঁদুর কৌটা ও পূজার ঘট) বিকেল ৩.৪০ মিনিট নাগাদ বাড়ির পথে রওনা দিলাম l      

আমার এই তারকেশ্বর ভ্রমণের কিছু ছবি এখানে দিলাম, যাতে আপনারা এই মহান ধাম সম্পর্কে কিছুটা অনুমান করে নিতে পারেন, বাড়ি থেকেই l 

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: